আওয়াজবিডি ডেস্ক
প্রকাশিত: সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০১৯

দেশের বিচার বিভাগের চরম অবনতি হয়েছে: ডা. জাফরুল্লাহ

ডা. জাফরুল্লাহ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘দেশের বিচার বিভাগের চরম অবনতি হয়েছে। দেশে আজ গণতন্ত্র নেই, আর গণতন্ত্র না থাকলে বিচার বিভাগের অবনতি হবে। এটাই স্বাভাবিক। এখন আমাদের সকলের কাজ হবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। এটা সকলের জন্য মঙ্গল হবে। ’

সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা আকরাম খাঁ হলে আদর্শ নাগরিক আন্দোলন আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘জজ সাহেবরা আইন ভুলে গেছেন, তারা আইনের অনুশাসন মানেন না। ’

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আজকে অ্যাটর্নি জেনারেলের অফিস হয়ে গেছে আওয়ামী লীগের অফিস। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে সব মামলা প্রত্যাহার করেছেন, কিন্তু বিরোধী দলের কোনও মামলার ক্ষেত্রে কি তা হয়েছে? মামলা প্রত্যাহার করছেন না, জামিন দিচ্ছেন না। বিচার বিভাগের বিবেকহীনতা বলেই এই জাতীয় ঘটনা, বিচারকদের মনে রাখতে হবে, কখনও না কখনও আপনাদেরকে জনতার আদালতে দাঁড়াতে হবে। আজকে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা হচ্ছে না। খালেদা জিয়ার মূল চিকিৎসা হলো তাকে জেল থেকে মুক্তি দেওয়া, পৃথিবীর আলো বাতাস দেখতে দেওয়া। এটি হলো তার মূল চিকিৎসা। সেটা না করে যদি মাথা ব্যাথার জন্য পা টিপে দেওয়া হয়, তাহলে কি মাথা ব্যাথা কমবে? খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় চিকিৎসা হবে তার মানসিক একাকীত্বর। এর জন্য কোনো চিকিৎসক নিয়োগ করা হয়নি। তবে যাই হোক তাকে জামিনে মুক্তি দেওয়া হোক। ’

প্রধানমন্ত্রীর কোনও কথা কাজে আসছে না দাবি করে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘শাসন আজকে অপশাসনে পরিণত হয়েছে। স্থানীয় কর্মকর্তাদের পরিবার নিয়ে যার যার এলাকায় অবস্থান করার নির্দেশ দিলেও কয়জন থাকছে? তাদের নড়াচড়া কি দেখতে পেয়েছেন? পাঁচ বছর ধরে চিকিৎসকদের গ্রামে যাওয়ার কথা বলছেন। কোনও স্পন্দন কি আপনি শুনতে পারছেন?’

আজকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে সব মামলা প্রত্যাহার করেছেন, কিন্তু বিরোধী দলের কোনও মামলার ক্ষেত্রে কি তা হয়েছে? মামলা প্রত্যাহার করছেন না, জামিন দিচ্ছেন না। এটা না করে ভুল কাজ করছেন। আমি অনুরোধ করবো, অনতিবিলম্বে আলোচনার পথ সুগম করুন, যাতে আমরা দেশে গণতন্ত্রের জন্য কাজ করতে পারি।

প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করে তিনি বলেন, ‘আমরা কোনও মর্মান্তিক পরিণতি চাই না। আমরা চাই আপনার ভালো কাজের জন্য আপনাকে দেশবাসী আপনাকে মনে রাখুক। অনুগ্রহ করে অনতিবিলম্বে একটি নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন, আলোচনার পথ সুগম করুন। রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দিন, অন্তত পক্ষে খালেদা জিয়ার জামিনের ব্যবস্থা করুন। যাতে আমরা দেশে গণতন্ত্রের জন্য কাজ করতে পারি। ’

Loading...