আওয়াজবিডি ডেস্ক
প্রকাশিত: মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০১৯

নোয়াখালীতে ধর্ষণের মামলা তুলে না নেয়ায় ছাত্রীকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ

নোয়াখালী

অপহরণ ও ধর্ষণের মামলা তুলে না নেওয়ায় এসএসসি পবীক্ষায় অংশগ্রহণকারী এক ছাত্রীকে (১৬) দ্বিতীয়বার অপহরণ করার অভিযোগ পাওয়া যায়। রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে কবিরহাট পৌরসভার ঘাটমাঝির দোকানের কাছে এ ঘটনা ঘটে। ওই ছাত্রী মায়ের সঙ্গে আত্মীয় বাড়িতে যাওয়ার পথ থকে অস্ত্রের মুখে সন্ত্রাসীরা তাকে অপহরণ করেছে।

এ ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে রাতে কবিরহাট থানায় রবিউল আউয়াল ওরফে সোহেলের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো নয়জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।
ছাত্রীর বড় ভাই মো. শাকের অভিযোগ করেন, জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরফকিরা ইউনিয়নে তাদের বাড়ি। গত বছরের ২২ নভেন্বর এসএসসি পরীক্ষার্থী ছোট বোনকে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে যায় একই উপজেলার পেশকারহাট এলাকার রবিউল আউয়াল ওরফে পলাশ নামে এক সন্ত্রাসী। পরে গ্রামবাসীর মধ্যস্থতায় নয়দিন পর তাকে ফিরে পান।

তার বোনকে ফিরে পাওয়ার পর তার কাছ থেকে ধর্ষণসহ নির্যাতন করার ঘটনা জানা যায়। কিন্ত এসএসসি পরীক্ষার কথা বিবেচনা করে তখন মামলা করেনি তারা। পরীক্ষা শেষে গত ৫ মার্চ জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি মামলা দায়ের করা হয়। আদালত মামলাটি তদন্ত করতে জেলার পিবিআইকে (পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেষ্টিগেশন) দিয়েছেন।
তিনি আরো অভিযোগ করেন, মামলা দায়েরের পর থেকে রবিউল মামলা প্রত্যাহার করার জন্য হুমকি দিতে থাকে।

রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে তার মা, তিনবোনসহ সিএনজি অটোরিকশায় করে কবিরহাট উপজেলার এক আত্মীয়বাড়িতে যাচ্ছিলো। পথে পৌরসভার ঘাটমাঝির দোকানের কাছে রবিউলের নেতৃত্বে ৮-১০ জনের একদল সন্ত্রাসী অস্ত্রের মুখে অটোরিকশা থেকে তার বোনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে কবিরহাট থানার ওসি মির্জা মোহাম্মদ হাছান জানান, ভিকটিমকে উদ্ধার এবং অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এদিকে জেলা পিবিআই’র পরিদর্শক আবদুল আউয়াল জানিয়েছেন, ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে মামলা দায়েরের পর আদালত থেকে তদন্ত ভার দেওয়া হয় তাকে। তদন্ত শেষে ইতিমধ্যে তিনি ওই মামলার একমাত্র আসামি রবিউলের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন।

Loading...