সাহিদ আহমেদ
প্রকাশিত: শুক্রবার ২৬ এপ্রিল ২০১৯

প্রথমবার ঢালিউড অ্যাওয়ার্ডে নিউইয়র্ক মাতালেন সানি লিওন

সানি
প্রথমবার ঢালিউড অ্যাওয়ার্ডে নিউইয়র্ক মাতালেন সানি লিওন। ছবি: আওয়াজবিডি

রবিবার দিনটি ছিল মেঘলা কিন্তু মেঘের আড়ালে যে সূর্য হাসে তার প্রমাণ পেতে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি নিউইয়র্ক বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের। কারণ সেদিন বাংলা কমিউনিটির সবচেয়ে বড় অ্যাওয়ার্ড আসর বসেছিল নিউইয়র্কের জ্যামাইকার এমাজুরা হলে। ১৮তম ঢালিউড ফিল্ম এন্ড মিউজিক অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে মৃদু ঠান্ডার সাথে মেঘলা আকাশের মাঝে সন্ধ্যার পর যেন হঠাৎ উষ্ণতা। আর সেই উষ্ণতা ছুঁয়ে দিতে যিনি আসলেন তিনি আর কেউ নন বলিউড অভিনেত্রী, বর্তমান আইটেম গানের সবচেয়ে জনপ্রীয় মানুষটি সানি লায়ন। মঞ্চে যখন উঠলেন তখন হলটি কানায় কানায় পূর্ণ। উঠার সাথে সাথেই সবার মোবাইলের আলোতে এক নিমিষেই যেন আলোকিত পুরো হল। উঠলেন, নাচলেন আর সেই নাচের তালে নাচালেন দর্শকদের সানি লিওন। বাংলাদেশিদের অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতে পেরে তিনি ভীষণ খুশি বলেও অভিমত ব্যক্ত করেছেন। ধন্যবাদ দিয়েছেন অনুষ্ঠানের আয়োজক শো-টাইম মিউজিক এন্ড প্লে’র কর্ণধার আলমগীর খান আলমকে।

এবারে ১৮তম ঢালিউড আসরের শুরুতে মঞ্চে আসেন তিন তারকা। জাহিদ হাসান, সাজু খাদেম ও আরফান আহমেদ। সাথে ছিলেন এ সময়ের পায়েল। তাদের রঙ্গরসের উপস্থাপন দর্শকদের আনন্দ দেয়। কিন্তু হাসি-ঠাট্টার মাঝেও তাদের কণ্ঠে ঘুরে-ফিরে আসে একটাই প্রতিধ্বনি ‘বাংলাদেশ ও প্রবাসীদের জয়গান’।

জনপ্রিয় সংগীশিল্পী রিজিয়া পারভীন যখন গেয়ে ওঠেন তার কণ্ঠেও মা মাটি ও দেশের গান। তখন সবাই ফিরে যান নিজ দেশ বাংলাদেশে। অভিনেত্রী ও নৃত্যশিল্পী নাদিয়া আহমেদ মঞ্চে আসেন বাংলাদেশের গান নিয়ে। তারকাদের পারফরম্যান্সের মাঝে তাদের হাতে তুলে দেয়া হয় এওয়ার্ড। সঙ্গীত শিল্পী তাহসান, রিজিয়া পারভীন, অভিনয়শিল্পী জাহিদ হাসান, সজল, মিশা সওদাগর, সাজু খাদেম, আরফান আহমেদ, মেহের আফরোজ শাওন, নাদিয়া আহমেদ ও শিরিন শিলা, মিস বাংলাদেশ নিশাত সাওলা, মডেল পিয়া বিপাশা এবং উপস্থাপিকা পায়েল পান ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড। কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনি ও টকশো উপস্থাপক নাভেদ মাহমুদও বাদ যায়নি।
অ্যাওয়ার্ড নিতে এসে মঞ্চে গেয়েছেন শাওন। স্মৃতিচারণ করেছেন নিউইয়র্ক শহরের। বলেন, এ শহর ভালবাসার শহর। প্রিয় মানুষ হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে এখানেই শেষ দিনগুলো কেটেছে।
এরপর ১৮তম ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে আজীবন সম্মাননা নিতে মঞ্চে যান নাট্যব্যক্তিত্ব সুবর্ণা মুস্তাফা। তার হাতে আজীবন সম্মাননা তুলে ধরেন আলমগীর খান আলম। সুবর্ণা মুস্তফা এসময় প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, আকাশ-সংস্কৃতির যুগে কোনো কিছু বেধে রাখা যাবে না। তবে যেকোনো উপায়ে বাংলা সংস্কৃতিকে সমুন্নত রাখতে হবে আমারদেরই। এজন্য প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
অনুষ্ঠানের আয়োজক শোটাইম মিউজিক এন্ড প্লে’র কর্ণধার আলমগীর খান আলম ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড নিয়ে তার পরিকল্পনার কথা বলেন। তিনি জানান, আগামী বছর এই অনুষ্ঠান হবে দুবাইতে।

ঢালিউড মঞ্চে এছাড়াও পারফর্ম করেন অভিনয়শিল্পী সজল, পিয়া বিপাশা, শিরিন শিলা, নাদিয়া, সাজু খাদেম এবং সঙ্গীত পরিবেশন করেন তাহসান।

ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড আসরের অংশ নিয়েছিলেন অভিনেত্রীও  সংসদ সদস্য সুবর্ণা মুস্তাফা। এছাড়াও ছিলেন রিজিয়া পারভীন, জাহিদ হাসান, মিশা সওদাগর।  
আরও ছিলেন তাহসান, মেহের আফরোজ শাওন, সজল, নাভিদ, পিয়া বিপাশা, নাদিয়া আহমেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি শিল্পীদের পরিবেশনা দর্শক শ্রোতাদেরকে মুগ্ধ করে। এছাড়াও কানাডিয়ান সংগীতশিল্পী রায়ান দর্শকদের জনপ্রিয় হিন্দি গান পরিবেশনা করেন।
২০১৮ সালের সেরা সংগীতশিল্পীর পুরস্কার লাভ করেন রিজিয়া পারভীন, তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন এলাইড মর্টগ্রেজ গ্রুপের সিনিয়র লোন অফিসার মোহাম্মেদ জান ফাহিম, সেরা কৌতুক অভিনেতার পুরস্কার পান রনি, সেরা অভিনেতার পুরস্কার পান সজল, আজীবন সম্মাননা পুরস্কার পান মিশা সওদাগর, সেরা নৃত্য শিল্পী নাদিয়া আহমেদ। লাইফ টাইম এচিভমেন্ট এওয়ার্ড প্রদান করা হয় সুবর্ণা মুস্তফাকে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত না থাকলেও এওয়ার্ড ঘোষণা করা হয় সাকিব খান (শ্রেষ্ঠ অভিনেতা ) জয়া আহসান ( শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী) এর জন্য।
অনুষ্ঠান শুরু হয় সংগীতশিল্পী শাহ মাহবুবকে দিয়ে। তিনি তিনটি গান পরিবেশন করেন। এরপর মঞ্চে আসেন রানো নেওয়াজ। প্রবাসী শিল্পীদের পরিবেশনা শেষে মূল অনুষ্ঠানের পর্বটি শুরু হয়। অনুষ্ঠানের উপস্থাপনায় ছিলেন জাহিদ হাসান, সাজু খাদেম, আরফান আহমেদ ও পায়েল।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন পরিবেশনার ফাঁকে ফাঁকে ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড তুলে দেওয়া হয় সেরা অভিনেতা, অভিনেত্রী, সংগীত শিল্পী, নৃত্যশিল্পী, কৌতুক অভিনেতা, টিভি অভিনেতা, অভিনেত্রী, মডেল ও ইন্টারন্যাশনাল এচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ডসহ বিভিন্ন অ্যাওয়ার্ড। ইন্টারন্যাশনাল এচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন বলিউডের সেনসেশন ও হার্টথ্রব সানি লিওনি। এর আগে এ পুরস্কার পেয়েছিলেন রাণী মুর্খাজি।

পুরস্কার পাওয়ার পর সানি লিওনি বলেন, একটি অনুষ্ঠানে পুরস্কার লাভ করা নিঃসন্দেহে আনন্দের। আমি এখানে এসে এই পুরস্কার পেলাম এই জন্য আমার খুব ভাল লাগছে। তাকে পুরস্কৃত করার জন্য ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড ফিল্ম এন্ড মিউজিক অনুষ্ঠানের আয়োজক আলমগীর খান আলমকে তিনি ধন্যবাদ জানান।
সানি লিওনির হাতে পুরস্কার তুলে দেন উৎসব ডট কমের কর্ণধার রায়হান জামান। সানি লিওনি পুরস্কার তুলে দেন শিফটের কর্নধার ইফতেখারুজ্জামান, আজকালের প্রধান সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ, নাসরীন আহমেদ, আজিজ আহমেদ, বেলাজিনো কর্তৃপক্ষ ও মেগা রিয়েলটি হোমের মঈনুল ইসলাম প্রমুখের হাতে।
অনুষ্ঠানের গ্র্যান্ড স্পন্সর ছিল কাসেল হিল মেডিকেল অব নিউইয়র্ক, পিউপল এন টেক। আইকন স্পন্সর ছিল এলাইড মর্ডগ্রেজের মোহাম্মেদ জন ফাহিম, এটর্নী আফফার বক্স, ইত্যাদি, এমইচসি এর মোহাম্মদ আমির হোসেন কামাল, মেগা হোমস রিয়েলটির মইনুল ইসলাম, এটর্নী মঈন চৌধুরী, নূহাস রিয়েলটির নুরুল আমিন, কাওরান বাজার সুপার মার্কেট, ওয়েল কেয়ার, ওয়াল্ড ট্যুরস এন্ড ট্রাভেল ইনক, ফিউমা, সারা কেয়ার ইউএসএ, ইয়র্ক হোল্ডিং রিয়েলটি, অথেন্টিক অটোস, সিলেট মটরস, ডেরা, তারেক হাসান খান, খাবার বাড়ি, পিসি রিচার্ডসন, স্টার কাবাব জ্যামাইকা, এটর্নী প্যারি ডি সিলভা, ডাঃ বর্নালী হাসান, ডাক্তার মাহফুজুল হাসান এক্সিলেন্স মেডিকেল ও ডেন্টাল কেয়ার, মেডিব্রুকের মর্ডগ্রেজ অফিসার নাসির উদ্দিন এম লস্কর, স্কয়ার ডিস্ট্রিবিউটরস, হাসান জিলানী, আটলান্টিস ক্যাপিটালের আলান রহমান, ইমগ্রেন্ট এডাল্ট কেয়ার, ডিউক খান, নিউইয়র্ক কমিউনিটি মেডিকেল কেয়ার, পিরান, বেলাল চৌধুরী, খানস টিউটোরিয়াল, পার্কচেস্টার ফার্মাসী, মোহাম্মদ তাহের, ফরিদ আলম, নিহার ফটোগ্রাফী, আব্দুল কাদের মিয়া ফাউন্ডেশন, ইয়াকুব এ খান সিপিও, প্রিমিয়াম সুইটস, বিএ এক্সপ্রেস ইউএসএ ইনক, এশিয়ান ড্রাইভিং এন্ড তানিয়া বিউটি সেলুন, অভিজাত, স্টার ফার্নিচার, এফএমএস গ্রুপ, ট্রু কেয়ার মাকুসুদুল চৌধুরী, রফিক আহমেদ, আহাদ এন্ড কো, আব্দুল রশিদ বাবু, বারী হোম কেয়ার, ইউনাইটেড অটো রিপিয়ার, এটর্নী সোমা সাঈদ, এ্যাম্পায়ার স্টেট ইন্স্যুরেন্স, এনওয়াই ইন্স্যুরেন্সের শাহ নেওয়াজ প্রেসিডেন্ট ও সিইও, নাসরীন আহমেদ, রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর ইস্টার্ন ইনভেস্টমেন্ট- এর নুরুল আজিম, ডাক্তার চৌধুরী এস হাসান, ফার্স্ট ট্রাক মোবিলিটি, এম আজিজ, প্রেসিডেন্ট ডিলাইট কন্সট্রাকশন, সায়মন মাল্টি সার্ভিসেস ও বোম্বে ট্রাভেল এন্ড গ্রাফিক্স ইনক। অনুষ্ঠানের টাইটেল স্পন্সর ছিল উৎসব.কম, বেলাজিনো ও চৌধুরী এন্ড ফ্রানজোনি ল ফার্ম। মিডিয়া পার্টনার ছিল সাপ্তাহিক ঠিকানা, সাপ্তাহিক আজকাল, এনটিভি, সময় টেলিভিশন, চ্যানেল আই, টিবিএন২৪।
এদিকে গত ৮ এপ্রিল সোমবার দেশ থেকে আগত শিল্পীদের সম্মানে এক নৈশভোজের আয়োজন করা হয় শোটাইম মিউজিকের পক্ষ থেকে। নৈশভোজে শিল্পীরা অংশ নেন। তাদের সঙ্গে কথা বলার ও ছবি তোলার সুযোগ পান আমন্ত্রিত অতিথিরা। শোটাইম মিউজিকের কর্ণধার আলমগীর খান আলম অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।

Loading...